এখন বলুন শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন হিসেবে নিবে কোন বলদে?

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, “ঘটনাচক্রে শিক্ষক হবেন না, শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন হিসেবে ধরেই আসতে হবে।” যারা এমন একটি ব্যবস্থা সৃষ্টি করেছে যেখানে শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন হিসেবে নেওয়া একটা দুঃস্বপ্নের মত আবার তারাই এখন বলছে ঘটনাচক্রে শিক্ষক হবেন না।

সত্যি কি সেলুকাস! যেই সমাজ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের রাষ্ট্রের তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারীর মর্যাদা দেয় সেই সমাজে শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন হিসেবে নিবে? উনারা নিজেরা কি চান তাদের সন্তান হওয়ার স্বপ্ন দেখুক?

এই দেশের ওয়ারেন্ট অফ প্রিসিডেন্সে জাতীয় অধ্যাপকের অবস্থান জানেন? এই লিস্টের ৮ম স্থানে আছে মিনিস্টার্স, চিফ ইলেকশন কমিশনার, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি প্রমুখ (Appellate Division)। ৯ম স্থানে আছে স্টেট মিনিস্টার্স, ইলেকশন কমিশনার, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিগণ। ১০ম স্থানে আছেন ডেপুটি মিনিস্টার্সরা।

১২তম অবস্থানে আছে কেবিনেট সেক্রেটারি, প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি, আর্মি, নেভি ও বিমান বাহিনীর প্রধানগণ। এভাবে গিয়ে ১৭তম অবস্থানে হলো জাতীয় অধ্যাপক। জাতীয় অধ্যাপকের উপরে আছেন সচিবরা, মেজর জেনারেল পদের আর্মি, নেভি ও বিমানবাহিনীর লোকজন।

কল্পনা করতে পারেন জাতীয় অধ্যাপক যিনি হবেন তিনি একজন পিএইচডি করা, অনেক ক্ষেত্রে একাধিক পোস্ট-ডক করা, যিনি জ্ঞান সৃষ্টি করা একজন মানুষ, যিনি প্রচুর সচিব বিচারপতি তৈরির কারিগর তার অবস্থান ওয়ারেন্ট অফ প্রিসিডেন্সের ১৭ নম্বরে।

আর সকল অধ্যাপক না। সিলেকশন গ্রেড অধ্যাপক অর্থাৎ সিনিয়র অধ্যাপকের অবস্থান হলো ১৯ নম্বরে। এখন বলুন শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন হিসেবে নিবে কোন বলদে?

আর সরকারি কলেজের শিক্ষক? সেটার নিয়োগ হয় পিএসসির মাধ্যমে so called BCS পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে। সেখানে শিক্ষকতা পেশার চাহিদা হলো ব্যতিক্ৰম ছাড়া সর্বনিম্নে বা শেষ চয়েস।

কারণ যারা শিক্ষকতা পেশাকে ফেসিলিটেটর হিসাবে দেখভাল করার দায়িত্বে তারা নিয়ন্ত্রকের ভূমিকায় নেমেছে। যেন তাদের একমাত্র কাজ শিক্ষকতা পেশাকে নিয়ন্ত্রণ করে বেতনে, সম্মানে ও সুযোগ সুবিধায় নিষ্পেষিত করা। এখন বলুন শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন হিসেবে নিবে কোন বলদে?

শিক্ষামন্ত্রী কি এসব জানেনা? জানে। জেনে শুনেই তারা এসব মেঠো বক্তৃতা দিয়ে সমাজে শিক্ষকদের আরও অপমান-অপদস্ত করেন। কারণ শিক্ষকরাতো তাদের ক্ষমতায় বসানোর হাতিয়ার না। এই রাষ্ট্রে তাদেরই মর্যাদা যারা দুর্নীতির মাধ্যমে হউক আর অনৈতিকভাবেই হোক যদি সরকারকে ক্ষমতায় রাখতে সহায়তা করতে পারে তাহলে তারাই কেবল রাষ্ট্রের সুযোগ সুবিধা পাবে।

একজন অতিরিক্ত সচিব গাড়ি কেনার জন্য ৩০ লক্ষেরও বেশি টাকা লোন পান, প্রতিমাসে ৫০ হাজার টাকা গাড়ি চালানোর খরচ পান আবার বিভিন্ন প্রজেক্ট থেকে SUV গাড়ি পান।

কলেজের শিক্ষক বা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বেতনের বাহিরে কি পান? আর প্রাথমিকের শিক্ষক? সেতো তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী। রাষ্ট্রের নির্বাচন বা অন্যান্য সকল কাজে কামলা খাটানোতে প্রাথমিক শিক্ষকদের খাটায়।

আর পারিশ্রমিক দেয় চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী বিবেচনা করে। ওরা কোন দাবি নিয়ে রাস্তায় নামলে কি পরিমান অপমান করে সেটা না হয় আর নাইবা বললাম। কারণ বলতেও লজ্জা লাগছে। আবার বলে ঘটনাচক্রে শিক্ষক হবেন না, শিক্ষকতা পেশাকে স্বপ্ন হিসেবে ধরেই আসতে হবে। কেমনে? কিভাবে?

লেখক: অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় [লেখকের ফেসবুক থেকে]

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!

Check Also

Primary teachers

যোগ্যতা অনুযায়ী শিক্ষকদের বেতনকাঠামো নির্ধারণ করা হোক

কবি কাজী কাদের নেওয়াজের ‘শিক্ষাগুরুর মর্যাদা’ কবিতাটাই উদাহরণ হিসেবে স্মরণ করা হয় শিক্ষকের প্রতি কেমন …

Primary teachers

বাংলাদেশের শিক্ষকদের বেতন দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন

শিক্ষা নিয়ে কাজ করা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার মোর্চা গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে. চৌধূরী …

আপনার মতামত জানান