চট্টগ্রামে এখনও ১৪ হাজার শিক্ষার্থী একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হতে পারেনি

চট্টগ্রাম নগরের স্বনামধন্য একটি স্কুল থেকে এবার এসএসসিতে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫ পেয়েও নামকরা কোনো সরকারি কলেজে ভর্তি হতে পারেনি পার্থ চৌধুরী। তিন দফায় আবেদন করেও পছন্দের কলেজ পেতে ব্যর্থ হয় সে। তার ভাগ্য নির্ধারণ হবে শেষ ধাপের আবেদনে।

একই অবস্থা চট্টগ্রামের ১৪ হাজার শিক্ষার্থীর। তাদের মধ্যে ৯১ জন এসএসসিতে জিপিএ ৫ পাওয়া। শেষ ধাপেও তারা ভর্তির সুযোগ পায় কিনা, তা নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছে এসব শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। এ জন্য সরকারি কলেজে আসন সংখ্যার অপ্রতুলতাকে দায়ী করছেন সংশ্নিষ্টরা।

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড-সংশ্নিষ্টরা জানান, চট্টগ্রামের সাড়ে ১৪ হাজার শিক্ষার্থীকে ভর্তির জন্য সর্বশেষ সুযোগ দিয়েছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটি। সর্বশেষ সুযোগ হিসেবে ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ভর্তিসংক্রান্ত ওয়েবসাইটে ফের আবেদন করতে পারবে তারা।

১২ ফেব্রুয়ারি রাতে এ ধাপের ফলাফল প্রকাশ করা হবে। এ দফায় নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ভর্তি চলবে ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।এর আগে তিন ধাপে একাদশে ভর্তি কার্যক্রম সর্বশেষ গত ৩১ জানুয়ারি সম্পন্ন হয়। ভর্তি শিক্ষার্থীদের নিয়ে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে পাঠদানও শুরু হয়েছে।

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক জাহেদুল হক বলেন, এবার ১০টি কলেজে আবেদনের সুযোগ থাকলেও জিপিএ ৫ পাওয়া অনেক শিক্ষার্থী পছন্দের ক্ষেত্রে ৫ থেকে ৬টির বেশি কলেজ দেয়নি। তাদের ধারণা ছিল, জিপিএ ৫ পাওয়ায় কমসংখ্যক কলেজে আবেদন করলেই হবে। কিন্তু যেসব কলেজে তারা আবেদন করেছে, সেখানে তাদের তুলনায় বেশি নম্বর পাওয়া আবেদনকারীর সংখ্যা অনেক বেশি ছিল। ফলে ভর্তির সুযোগ হয়নি তাদের।

তিনি বলেন, ‘আবেদন চলাকালে সর্বোচ্চ সংখ্যক কলেজ পছন্দ দিতে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের প্রতি আমরা বারবার অনুরোধ জানিয়েছি। কিন্তু অনেকেই তা করেনি। এটা করলে এ সমস্যার তৈরি হতো না।’

চট্টগ্রাম মহানগরের ৮টি সরকারি কলেজে ভর্তিতেই মেধাবীদের বেশি আগ্রহ থাকে। এগুলো হলো- চট্টগ্রাম কলেজ, হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ, সিটি কলেজ, কমার্স কলেজ, মহিলা কলেজ, বাকলিয়া কলেজ, চট্টগ্রাম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং কলেজিয়েট স্কুল অ্যান্ড কলেজ।

এসব কলেজে মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য আসন রয়েছে ২ হাজার ৪৫৫টি, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য ৩ হাজার ৫৬০টি এবং বিজ্ঞান বিভাগের জন্য আসন রয়েছে ৩ হাজার ২৮৫টি। এসব কলেজে প্রতিবারের মতো এবারও আসনের বিপরীতে কয়েক গুণ বেশি আবেদন জমা পড়ে।

জিপিএ ৫ পেয়ে এখনও কলেজে ভর্তির সুযোগ না পাওয়া আবিয়াত রহমান বলে, তার প্রথম পছন্দ ছিল চট্টগ্রাম কলেজ ও হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ। এর কোনোটিতেই ভর্তির সুযোগ পায়নি সে। অন্য কলেজগুলোতেও ভর্তির সুযোগ হয়নি। তাই চরম দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে তার। চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পায় ১৮ হাজার ৬৮৮ জন

Check Also

মরার জন্য অসুস্থ মাকে নির্জন বিলে রেখে পালিয়ে গেল সন্তান

মরার জন্য অসুস্থ মাকে নির্জন বিলে রেখে পালিয়ে গেল সন্তান

কঙ্কাল সার শরীর, ডান চোখের উপরে মাথার একাংশ সহ বড় টিউমার। লালচে হয়ে যাওয়া মাংসপিন্ডের …

শিক্ষার্থী

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বিভিন্ন ধরণের ক্লাব গঠন বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে

দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বিভিন্ন ধরণের ক্লাব গঠন বাধ্যতামূলক হচ্ছে। বিজ্ঞান চর্চা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও সংস্কৃতি চর্চার …

আপনার মতামত জানান