গুণগত শিক্ষা নিশ্চিত করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আসন সংখ্যা কমানো হচ্ছে

জাতীয় চাহিদা পূরণ ও গুণগত শিক্ষা নিশ্চিত করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আসনসংখ্যা ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ থেকে কমানো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলে দাবী করছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির আসন সংখ্যা পুনঃনির্ধারণ বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েছেন।

আসনসংখ্যা অন্তত ১ হাজার আসন কমিয়ে ৬ হাজারে নামিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছেন ঢাবি কর্তৃপক্ষ ।এ বিষয়ে একটি সুপারিশও প্রণয়ন করা হয়েছে। সুপারিশ অনুযায়ী অনুযায়ী নতুন সেশনে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। এই সুপারিশ পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলে আলোচনার পর সিন্ডিকেট সভায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হবে।

গতকাল বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ডিনস কমিটির এক বিশেষ সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ডিনস কমিটির সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু বিভাগে আসন সংখ্যা কমানোর সুপারিশ করা হয়েছে ।

একইসঙ্গে কিছু ডিপার্টমেন্টে আসন বৃদ্ধি করারও সুপারিশ করা হয়। যুগোপযোগী শিক্ষা বাস্তবায়নে ঢাবির আসন সংখ্যা পুনঃনির্ধারনের এ প্রস্তাব করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলে আলোচনার পর এ প্রস্তাব সিন্ডিকেট সভায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামালসহ বিভিন্ন অনুষদের ডিন উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সভায় সংশ্লিষ্ট বিভাগ,ইনস্টিটিউট ও অনুষদগুলোর চাহিদা-প্রস্তাব পর্যালোচনা করা হয় এবং ভর্তির যৌক্তিক আসন সংখ্যা নির্ধারণ বিষয়ে সুপারিশ প্রণীত হয়। এই সুপারিশ অনুমোদনের জন্য পরবর্তী একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় পেশ করা হবে।

শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়ন ও যথোপযুক্ত দক্ষ মানব সম্পদ তৈরির লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সক্ষমতা ও সামর্থ্য এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চাহিদা বিবেচনায় নিয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মিহির লাল সাহা গণমাধ্যমকে বলেন, বাজার চাহিদার বিষয়টি মাথায় রেখে মোট আসন সংখ্যা পুনর্নির্ধারণ করা হবে। যেমন, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বা আইটি’র (তথ্য প্রযুক্তি) মতো বিষয়গুলোতে ছাত্র সংখ্যা বৃদ্ধি হতে পারে। আবার কলা অনুষদের বেশ কিছু বিভাগে অনেক বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে। সেগুলোও পুনর্নির্ধারণ করা হবে।

আরো পড়ুন
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা অথবা বন্ধ রাখা বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আগামীকাল বৈঠক
ভর্তির সাক্ষাৎকার নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ৩টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা
শিক্ষকদের এমন বেতন দিতে হবে যাতে কাউকে প্রাইভেট পড়াতে না হয়
১৭তম বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা জুনের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে
২য়-৯ম শ্রেণিতে ভর্তিতেও শিক্ষার্থীদের বয়স নির্ধারণ করা হচ্ছে

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!

Check Also

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর

শ্রেণিকার্যক্রম বন্ধ থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিস কার্যক্রম চালাতে হবে

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউসি)করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ব্যাপকহারে বেড়ে যাওয়ায় ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ …

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে হলগুলো খোলা রেখে সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত

আবাসিক হলগুলো খোলা রেখে সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (ববি) কর্তৃপক্ষ ।বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমি …

আপনার মতামত জানান