প্রাক থেকে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষাক্রম পরিবর্তনের সাথে সাপ্তাহিক ছুটি হচ্ছে ২দিন

সরকার দেশের প্রাক-প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষাক্রমে বড় পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।সেইসাথে বিষয় ও পরীক্ষা কমিয়ে আনা হচ্ছে ।

এ জন্য জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) বিদ্যমান শিক্ষাক্রম পরিমার্জন করে নতুন শিক্ষাক্রম তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে ।

গত বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে শিক্ষামন্ত্রী ড.দীপু মনি বলেছেন ২০২২ সাল থেকে নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন শুরু হবে।

প্রাক্-প্রাথমিক শিক্ষা ১ বছরের পরিবর্তে ২বছর মেয়াদী হবে এবং ১০ম শ্রেণির আগে কোনো পাবলিক পরীক্ষা থাকবে না।মাধ্যমিকে কোন বিভাগ (বিজ্ঞান, মানবিক,ব্যবসা) থাকবেনা। উচ্চমাধ্যমিকে গিয়ে বিভাগ নির্ধারিত হবে।

আগামী জানুয়ারি থেকে নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নের কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে ১ বছর পেছানো হয়েছে।

দুই বছর মেয়াদী হচ্ছে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা

দুই বছর মেয়াদি করা হচ্ছে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষাকে , ৪ বছর বয়সী শিশু ভর্তি হয়ে ৬বছর বয়সে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করবেন।২টি শ্রেণিতে বিভক্ত থাকবে প্রাক্-প্রাথমিক শিক্ষা ।

প্রাক-প্রাথমিক ১ম শ্রেণি ও প্রাক-প্রাথমিক ২য় শ্রেণি। বর্তমানে ৫ বছর বয়সী শিশুদের ১ বছর মেয়াদি প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা দেয়া হয় ও আর ৬ বছর বয়সী শিশুদের ১ম শ্রেণিতে ভর্তি করা হয়।

বিষয় সংখ্যা কমতেছে

নতুন শিক্ষাক্রমে প্রাক-প্রাথমিক থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত ১০ ধরনের শেখার ক্ষেত্র ঠিক করা হয়েছে। এগুলো হলো ভাষা ও যোগাযোগ, গণিত ও যুক্তি, জীবন ও জীবিকা, সমাজ ও বিশ্ব নাগরিকত্ব, পরিবেশ ও জলবায়ু, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি, শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য এবং সুরক্ষা, মূল্যবোধ ও নৈতিকতা এবং শিল্প ও সংস্কৃতি।

প্রাক্-প্রাথমিকের শিশুদের জন্য আলাদা বই থাকবে না, শিক্ষকেরা শেখাবেন। প্রাথমিকের জন্য ৮টি বিষয় নির্বাচন করা হয়েছে।

এগুলো হলো বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান, সামাজিক বিজ্ঞান, ধর্মশিক্ষা, ভালো থাকা এবং শিল্প ও সংস্কৃতি। এর মধ্যে ‘ভালো থাকা’ এবং ‘শিল্প ও সংস্কৃতি’ বিষয়ে আলাদা বই থাকবে না। এগুলো শিক্ষকেরা শেখাবেন, যার জন্য নির্দেশনামূলক বই দেওয়া হবে।

আর ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীকে ১০টি অভিন্ন বই পড়ানো হবে। এগুলো হলো বাংলা, ইংরেজি, গণিত, জীবন ও জীবিকা, বিজ্ঞান, সামাজিক বিজ্ঞান, ডিজিটাল প্রযুক্তি, ধর্মশিক্ষা, ভালো থাকা এবং শিল্প ও সংস্কৃতি।

বর্তমানে মাধ্যমিকে ১২ থেকে ১৪টি বই পড়ানো হয়। এখন ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত কিছু অভিন্ন বই পড়তে হয়। আর ৯ম শ্রেণিতে শাখা বিভাজন হয়। নতুন শিক্ষাক্রমে একাদশ শ্রেণিতে গিয়ে শাখা পরিবর্তন হবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি হবে ২দিন

বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি শুধু ১ দিন (শুক্রবার) কিন্তু নতুন শিক্ষাক্রমে অন্যান্য সরকারি প্রতিষ্ঠানের মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেরও শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ২দিন ছুটি থাকবে।

নতুন শিক্ষাক্রমের বই কখন শিক্ষার্থীরা হাতে পাবেন?

এনসিটিবির সূত্রমতে, ২০২২ সালে প্রাক-প্রাথমিকের ১ম শ্রেণি, প্রাথমিকের ১ম ও ২য় শ্রেণি এবং মাধ্যমিকের৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা নতুন শিক্ষাক্রমের  বই পাবেন।২০২৩ সালে ৮ম শ্রেণি এবং ২০২৪ সালে ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা নতুন শিক্ষাক্রমের বই পাবেন। উচ্চমাধ্যমিকের শিক্ষার্থীরা ২০২৬ সালে বই পাবেন।

৩য় শ্রেণির আগে কোন পরীক্ষা থাকতেছেনা

নতুন শিক্ষাক্রমে ৩য় শ্রেণির আগে  কোন পরীক্ষা হবেনা।  ধারাবাহিকভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই মূল্যায়ন করা হবে। ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণিতে ৭০ শতাংশ শিখনকালীন মূল্যায়ন হবে এবং ৩০ শতাংশ হবে সামষ্টিক মূল্যায়ন (বার্ষিক পরীক্ষা)।

একইভাবে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ৬০ শতাংশ শিখনকালীন এবং ৪০ শতাংশ সামষ্টিক মূল্যায়ন হবে। ৯ম ও ১০ম শ্রেণিতে ৫০ শতাংশ শিখনকালীন ও ৫০ শতাংশ সামষ্টিক মূল্যায়ন হবে।

পাবলিক পরীক্ষা হবে কেবর দশম শ্রেণিতে এবং এসএসসি পরীক্ষা হবে ১০ম শ্রেণির পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে । ১০ম শ্রেণির মোট ১০টি বিষয়ের মধ্যে ৫টির পরীক্ষা হবে এসএসসিতে। এগুলো হলো বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান ও সামাজিক বিজ্ঞান। বাকি পাঁচটি বিষয়ের মূল্যায়ন হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে।

 উচ্চমাধ্যমিকে (একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণি) ৬টি বিষয়ে ১২টি পত্র থাকবে। একাদশ শ্রেণিতে বাধ্যতামূলক বিষয় হিসেবে বাংলা, ইংরেজি এবং ডিজিটাল প্রযুক্তির পাশাপাশি একজন শিক্ষার্থী যে শাখায় পড়বে, সেই শাখার প্রতিটি বিষয়ের প্রথম পত্রের (মোট তিনটি) পরীক্ষা হবে।

অর্থাৎ একাদশ শ্রেণিতে মোট ছয়টি বিষয়ে পাবলিক পরীক্ষা হবে। আর দ্বাদশ শ্রেণিতে নিজ নিজ শাখার তিনটি বিষয়ের দ্বিতীয় ও তৃতীয় পত্রের মোট ছয়টি বিষয়ে পাবলিক পরীক্ষা হবে।

নতুন শিক্ষাক্রমে প্রতি শাখার তিনটি বিষয়ের প্রতিটির জন্য তিনটি পত্র থাকবে। দুই পরীক্ষার সম্মিলিত ফলের ভিত্তিতে এইচএসসির চূড়ান্ত ফল ঘোষণা হবে।

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!

Check Also

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট)

বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ,পাসের হার ৩৩ শতাংশ

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) বিভিন্ন বিভাগে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। …

PSC

আগামী ২৯ নভেম্বর থেকে ৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা শুরু

আগামী ২৯ নভেম্বর থেকে ৪১তম বিসিএসের বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা সকাল ১০টা থেকে অনুষ্ঠিত হয়ে ৭ …

আপনার মতামত জানান